৮ প্রতিষ্ঠান পেল এইচএসবিসি বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ড

আট প্রতিষ্ঠানকে ‘তৃতীয় এইচএসবিসি বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডস’-সম্মাননা প্রদান করেছে দি হংকং অ্যান্ড সাংহাই ব্যাংকিং কর্পোরেশন লিমিটেড বাংলাদেশ। চ্যালেঞ্জিং সময়েও দেশের উন্নয়নকে তরান্বিত করতে এবং অর্থনীতিতে টেকসই প্রবৃদ্ধি ধরে রাখতে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের জন্য বিভিন্ন ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান এবং উদ্যোক্তাদের নিরলস প্রচেষ্টার স্বীকৃতি হিসেবে এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

বাণিজ্য মন্ত্রণালয় এবং ঢাকাস্থ ব্রিটিশ হাইকমিশনের যৌথ উদ্যোগে এইচএসবিসি বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডের আয়োজন করা হয়। আজ শনিবার ঢাকার একটি হোটেলে এই প্রধান অতিথি হিসেবে বিজয়ীদের হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার সারাহ কুক, এইচএসবিসি বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহবুব উর রহমান এবং কান্ট্রি হেড অফ হোলসেল ব্যাংকিং জেরার্ড কেভিন হগি।

এইচএসবিসি বিজনেস এক্সিলেন্স অ্যাওয়ার্ডস বিজয়ীরা হলেন : এক্সপোর্ট এক্সিলেন্স-তৈরি পোশাক শিল্প : (বার্ষিক রপ্তানি আয় ৫০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ও তার বেশি) হা-মীম গ্রুপ, এক্সপোর্ট এক্সিলেন্স্-সাপ্লাই চেইন এবং ব্যাকওয়ার্ড লিঙ্কেজ (বার্ষিক রপ্তানি আয় ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ও তার বেশি) পাহাড়তলী টেক্সটাইল এন্ড হোসিয়ারি মিলস্, এক্সপোর্ট এক্সিলেন্স্-অসনাতন ও উদীয়মান ক্ষেত্র (বার্ষিক রপ্তানি আয় ৩ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ও তার বেশি) রেনেটা লিমিটেড, আমদানি-বিকল্প শিল্পে অবদান (আমদানি-বিকল্প পণ্যের পরিমাণ ১০ মিলিয়ন মার্কিন ডলার বা তার বেশি) সিটি গ্রুপ, অভ্যন্তরীণ বিনিয়োগ ও অবকাঠামো উন্নয়নে অবদান (বৈদেশিক বিনিয়োগ যা হতে পারে মূলধন, প্রযুক্তিগত উৎকর্ষ) গিল্ডান, সাসটেইনেবিলিটিতে এক্সিলেন্স্ (এমন প্রতিষ্ঠান যাঁরা সাসটেনাবিলিটি উদ্যোগ বা প্রজেক্টের মাধ্যমে সমাজে কার্যকরী ও যুগান্তকারী অবদান রেখেছে) সিনজেনটা বাংলাদেশ লিমিটেড, নতুন প্রযুক্তি প্রনয়নে শ্রেষ্ঠ (উদ্ভাবন ও প্রযুক্তির মাধ্যমে জীবন এবং অর্থনীতির উন্নতিতে উল্লেখযোগ্য অবদান) বিকাশ, স্পেশাল এচিভমেন্ট অ্যাওয়ার্ড (ব্যক্তি/সংস্থা যারা দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নতি, উদ্ভাবনে শ্রেষ্ঠত্ব, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং কমিউনিটিতে অনুকরণীয় অবদান রেখেছে) স্কয়ার গ্রুপ

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি এমপি বলেন, শিল্প ও বাণিজ্যখাতের উন্নয়নে সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগের সহায়তাকে কাজে লাগিয়ে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা আভ্যন্তরীণ ও আন্তর্জাতিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় দৃঢ়তার পরিচয় দিয়েছেন। সফল ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও উদ্যোক্তারা, যাদের উল্লেখযোগ্য অবদান দেশের অগ্রযাত্রায় অগ্রণী ভূমিকা রেখেছে, তাঁদের সম্মানিত করার এইচএসবিসি বিজনেস এক্সিলেন্স্ অ্যাওয়ার্ডসের এই উদ্যোগ আমাদের অঙ্গীকারের সঙ্গে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সারাহ কুক বলেন, একটি প্রাণবন্ত ও সুদৃঢ় প্রাইভেট সেক্টর বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের চালিকা শক্তি।

এই পুরস্কারের মাধ্যমে শ্রেষ্ঠ এই সকল প্রতিষ্ঠানকে, তথা তাদের উদ্ভাবনী উদ্যোগ ও চিন্তাভাবনা, কর্মসংস্থান সৃষ্টি এবং আরো বেশি পরিমাণ বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণের প্রয়াসকে সম্মানিত করতে পারার এই উদ্যোগে এইচএসবিসির সঙ্গে সম্পৃক্ত হতে পেরে আমরা আনন্দিত।

এইচএসবিসি বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. মাহবুব উর রহমান বলেন, নিজ নিজ ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ব্যবসায়ী গোষ্ঠী তাঁদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণের মাধ্যমে নতুন উচ্চতায় উন্নীত। পণ্য ও সেবার মান উন্নয়নের অঙ্গীকার নিয়ে এই সকল প্রগতিশীল উদ্যোক্তারা চলমান প্রচেষ্টাকে স্বীকৃতি প্রদান তথা তাদের এই অর্জনকে উদযাপন করতে পেরে আমরা গর্বিত। আমাদের ব্যবসায়িক গোষ্ঠী ক্রমেই আন্তর্জাতিক হয়ে উঠছে এবং প্রায় তিন যুগ ধরে এইচএসবিসি বাংলাদেশের ব্যবসায়ীদের বৈশ্বিক বাণিজ্যিক পরিসরে সংযুক্ত করে আসছে যা বিশ্বব্যাপী এইচএসবিসি দেড় শ বছরেরও বেশি সময় ধরে করে আসছে।