আয়কর দিতে চালান জমার প্রক্রিয়া আরও সহজ করতে হবে

দেশে মোট সাড়ে ৯৩ লাখ টিআইএন নম্বরধারীর মধ্যে গত অর্থবছর রিটার্ন জমা দিয়েছেন অর্ধেক। তবে চালান জমা প্রক্রিয়া সহজ করলে আয়করদাতারা বেশি আগ্রহী হবেন বলে জানিয়েছেন কর আইনজীবীরা। এতে বাড়বে আয়কর রিটার্ন দাখিলও।

প্রতিবছরের মতো এবারও নভেম্বরজুড়ে চলছে আয়কর তথ্যসেবা মাস। তবে গত কয়েক বছরের মতো এবারও হচ্ছে না আয়কর মেলা। জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ৩১টি কর অঞ্চলের ৬৪৯টি সার্কেল কার্যালয়ে সকাল ৯টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত গ্রাহকদের দেয়া হচ্ছে এই করসেবা।

আগামী ৩০ নভেম্বর আয়কর জমা দেয়ার শেষ দিন। বিভিন্ন কর অঞ্চল ঘুরে উপস্থিতি কিছুটা কম মনে হলেও শেষ পর্যায়ের ভিড় এড়াতে মাসের শুরুতেই আয়কর রিটার্ন জমা ও তথ্যসেবা নিতে এসেছেন অনেকেই। সেবাদাতাদের প্রত্যাশা: রিটার্ন জমার পরিমাণ মাসের শেষ দিকে অনেক বাড়বে।

করদাতারা জানান, শেষদিকে ভিড় অনেক বেড়ে যাবে! তাই আগেভাগেই রিটার্ন জমা দেয়া ভালো।

আর করগ্রহীতারা বলছেন, দিন যত গড়াবে, করাদাতাদের ভিড় তত বাড়বে। গত বছরের তুলনায় চলতি বছর ৩০ থেকে ৩৫ শতাংশ বেশি করদাতা রিটার্ন দাখিল করবেন বলে আশা তাদের।

তবে কর আইনজীবীরা বলছেন, চালান জমা দিতে সময়ক্ষেপণ হয়। চালান জমা প্রক্রিয়া সহজ করা হলে আয়করদাতারা আরও বেশি আগ্রহী হবেন, ফলে বাড়বে আয়কর রিটার্ন দাখিল।

আয়কর আইনজীবী অ্যাডভোকেট মফিজুল ইসলাম খান, চালান জমা দিতে ব্যাংকে অনেক সময় লাগছে। এ প্রক্রিয়া সহজ করতে এনবিআরকে কাজ করতে হবে।

মাসের শেষে চাপ না বাড়িয়ে সেবাগ্রহীতাদের শুরু থেকেই রিটার্ন জমা দেয়ার আহ্বান জানান কর কমিশনার।

এনবিআর অঞ্চল-৪-এর কর কমিশনার রফিকুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, আগামী ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সবাইকে রিটার্ন জমা দিতে হবে।

দেশে মোট ট্যাক্স আইডেন্টিফিকেশন নম্বর, (টিআইএন) সংখ্যা ৯৩ লাখ ৪৩ হাজার। এর মধ্যে গত অর্থবছর রিটার্ন জমা হয় মোট টিনধারীর অর্ধেক। এর মধ্যে গেল ৩ মাসেই বেড়েছে ৩ লাখ ৪৩ হাজার। এ সময় রিটার্ন দাখিল হয়েছে ৪ লাখ ৩৯ হাজার ও ই-রিটার্ন ২৭ হাজার।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *