গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক রেহমান সোবহান বলেছেন, বাংলাদেশের অবস্থা শ্রীলঙ্কার মতো হওয়ার আশঙ্কা নেই। তবে, দেশের রিজার্ভ এখন যা আছে, তার চেয়ে কমে গেলে বিপদ হতে পারে। রিজার্ভ ধারাবাহিকভাবে কমতে কমতে একসময় যদি তা ১০ বিলিয়ন ডলারে নেমে আসে, সে সময় এমন হতে পারে যে, আইএমএফের সহায়তা পাওয়া যাবে না।

সোমবার (৯ অক্টোবর) অর্থনীতিবিষয়ক সাংবাদিকদের সংগঠন ইকোনমিক রিপোর্টার্স ফোরাম (ইআরএফ) আয়োজিত ‘অধ্যাপক রেহমান সোবহানের সঙ্গে সংলাপ’-এ এসব কথা বলেন তিনি। ইআরএফের সাধারণ সম্পাদক মো. আবুল কাশেমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির সভাপতি রেফায়েত উল্লাহ মৃধা।

বাংলাদেশের রিজার্ভ যেভাবে ধারাবাহিকভাবে কমছে, তার সঙ্গে শ্রীলঙ্কার অনেকটা মিল দেখা যায়। তবে, বাংলাদেশের অর্থনীতি নিঃসন্দেহে শ্রীলঙ্কার চেয়ে ভালো অবস্থায় আছে।

অধ্যাপক রেহমান সোবহান 

বিষয়টি ব্যাখ্যা করে তিনি বলেন, ‘আমাদের বড় রপ্তানি খাত আছে। সেই সঙ্গে আছে রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয়, যা শ্রীলঙ্কার চেয়ে অনেক বেশি।’ সে কারণে তিনি বিশ্বাস করেন না যে, বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক পরিস্থিতি কখনো শ্রীলঙ্কার মতো হতে পারে।

রেহমান সোবহান বলেন, দেশে রেমিট্যান্স বা প্রবাসী আয় কমে যাচ্ছে। তার মানে এই নয় যে, দেশে প্রবাসী আয় আসা বাস্তবে কমে গেছে। আনুষ্ঠানিক পথে না এসে অনানুষ্ঠানিক পথে আসছে প্রবাসী আয়, যার মূল মাধ্যম হুন্ডি। অর্থাৎ রিজার্ভ বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা না হয়ে হুন্ডিতে জমা হচ্ছে, যা বাংলাদেশের বাইরে জমা হচ্ছে। যারা বিদেশে অর্থ পাচার করেন, তাদের জন্য এটা সুবিধাজনক হয়েছে। বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন।

দেশের আর্থিক খাতের সংস্কৃতিতে বড় পরিবর্তন এসেছে। ঋণ নেওয়ার পর ফেরত না দেওয়াটা নিয়মে পরিণত হয়েছে। বড় ব্যবসায়ী নয়; বরং যারা এসব করছেন, তারা নিজেদের বড় রাজনীতিক হিসেবে পরিচয় দিচ্ছেন।

অধ্যাপক রেহমান সোবহান 

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, গত সেপ্টেম্বরে রেমিট্যান্সে উল্লেখযোগ্য পতন হয়েছে। এ সময়ে রেমিট্যান্স এসেছে ১৩৪ কোটি ডলার, যা ৪১ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন। অথচ আগস্টে এক মাসে সর্বোচ্চ সংখ্যক শ্রমিক বিদেশে যান। ২০২২-২৩ অর্থবছরেও ১১ লাখ ৩০ হাজার শ্রমিক রপ্তানির রেকর্ড হয়। এ অবস্থায় দেশের বৈদেশিক মুদ্রার মজুত ধারাবাহিকভাবে কমছে।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক জানিয়েছে, আইএমএফের হিসাব পদ্ধতি অনুসারে গত ২৬ সেপ্টেম্বরে রিজার্ভের পরিমাণ ছিল ২১ দশমিক ১৫ বিলিয়ন ডলার।

গত ১৫ বছরে দেশে অভূতপূর্ব উন্নয়ন হয়েছে, উল্লেখ করে রেহমান সোবহান বলেছেন, অবকাঠামোগত অনেক উন্নয়ন হয়েছে এ সময়ে। বিশেষ করে, আমাদের গ্যাস সঙ্কট তীব্র হওয়ায় এলএনজি আমদানি বেড়েছে। বিদ্যুৎ উৎপাদন অনেক বেড়েছে। পদ্ধতিগত কিছু ত্রুটি থাকতে পারে। তারপরও বলব, বিদ্যুৎ উৎপাদনে বিএনপি যা পারেনি, বর্তমান সরকার সেটা পেরেছে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে অধ্যাপক রেহমান সোবহান জানান, পেশাজীবনের শুরুতে তিনি অর্থনীতি বিটের রিপোর্টার ছিলেন। তিনি ইআরএফ’র সদস্যদের অনুসন্ধানী রিপোর্টিংয়ে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দেন। এর আগে, ইআরএফ’র সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক অর্থনীতিবিদ রেহমান সোবহানের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।