এআইআইবি থেকে বাংলাদেশ পাচ্ছে ৪৮ হাজার ৮১৩ কোটি টাকা

এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংক (এআইআইবি) আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশের বিভিন্ন প্রকল্পে সাড়ে ৪ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। প্রতি ডলার ১০৮ টাকা ৮৪ পয়সা হিসেবে বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৪৮ হাজার ৮১৩ কোটি ৮৪ লাখ টাকা।

মিশর থেকে পাঠানো অর্থ মন্ত্রণালয়ের জনসংযোগ কর্মকর্তা গাজী তৌহিদুল ইসলামের পাঠানো এক তথ্য বিবরণীতে এ কথা জানানো হয়েছে।

(২৬ সেপ্টেম্বর) পাঠানো তথ্য বিবরণী সূত্রে জানা গেছে, ২৫-১৬ সেপ্টেম্বর মিশরে অনুষ্ঠিত ব্যাংকটির ৮ম বার্ষিক সভায় অর্থনৈতিক সম্পর্ক বিভাগের সচিব শরিফা খানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের একটি প্রতিনিধিদল অংশ নেয়। এবারের বার্ষিক সভায় জলবায়ু অর্থায়ন এবং পাবলিক ও প্রাইভেট বিনিয়োগের মধ্যে সেতু বন্ধনের ওপরে জোর দেওয়া হয়েছে।

বাংলাদেশে ২০১৬ সালে বিদ্যুৎ খাতে ১৬৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের একটি প্রকল্পের মাধ্যমে এআইআইবির বিনিয়োগ শুরু হয়েছিল। প্রথম ৩ বছরে এআইআইবির অর্থায়ন ছিল ৪টি প্রকল্পের বিপরীতে ৪৪৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার, যা বর্তমানে ১৮টি প্রকল্পের বিপরীতে ৩ হাজার ২৭০ মিলিয়ন ডলার।

আগামী ৫ বছরে বাংলাদেশকে সাড়ে ৪ বিলিয়ন ডলার দেবে এআইআইবি | undefined

তথ্য বিবরণীতে জানানো হয়েছে, আগামী ৫ বছরের জন্য এআইআইবি অর্থায়নের বাংলাদেশের পাইপলাইনে ৪ দশমিক ৫০ বিলিয়ন ডলার রয়েছে। যা বাংলাদেশে আগামী ৫ বছরে জলবায়ু সমস্যা মোকাবিলায় অর্থায়ন এবং পাবলিক ও প্রাইভেট বিনিয়োগের মধ্যে সেতু বন্ধনে গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা রাখতে সক্ষম হবে।

এবারের বার্ষিক সভার মূল প্রতিপাদ্য ‘সাসটেইনেবল গ্রোথ ইন এ চ্যালেঞ্জিং ওয়ার্ল্ড’ অত্যন্ত সময়োপযোগী ও তাৎপর্যপূর্ণ উল্লেখ করে শরিফা খান বলেন, বিশ্ব সম্প্রদায়, উন্নত থেকে উন্নয়নশীল সব দেশই এই মুহূর্তে বিশাল চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি। যার বেশিরভাগই রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ, জলবায়ু পরিবর্তন, বৈশ্বিক উষ্ণতা বৃদ্ধি ইত্যাদির কারণে উদ্ভূত। বিশেষ করে জলবায়ু সহিষ্ণু অবকাঠামো নির্মাণ বর্তমান সময়ে অত্যন্ত জরুরি।

তিনি বলেন, বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তনে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার ঝুঁকিতে আছে। তাই বিশ্বের প্রধান অর্থনীতির দেশগুলো জলবায়ু পরিবর্তন এবং আসন্ন সংকট এড়াতে উন্নয়নশীল দেশগুলোর ন্যায্য অংশীদারত্বের বিষয়ে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

সভায় এআইআইবি সভাপতি এবং বোর্ডের চেয়ারম্যান জিন লিকুন জলবায়ু পরিবর্তন মোকাবিলায় সদস্যদের প্রচেষ্টায় একযোগে কাজ করার আশা ব্যক্ত করেন।

তিনি বলেন, আগামী জলবায়ু চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় এআইআইবি সদস্যদের পাশে থাকবে। আমাদের অবশ্যই গ্রিনহাউস গ্যাস নির্গমন দ্রুত কমাতে, আবহাওয়ার চরম অবস্থায় শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়ে তুলতে এবং পৃথিবীতে জীবনকে সম্ভব করে তোলে এমন প্রাকৃতিক পুঁজিকে রক্ষা করতে একসঙ্গে কাজ করতে হবে।

বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল গভর্নরস বিজনেস রাউন্ড টেবিল, সেমিনার, গভর্নস অফিশিয়াল সেশনে অংশগ্রহণ করে। পাশাপাশি এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের বিনিয়োগ অপারেশন অঞ্চল ১-দক্ষিণ এশিয়া, প্রশান্ত মহাসাগরীয় দ্বীপপুঞ্জ এবং দক্ষিণ পূর্ব এশিয়া-এর ভাইস প্রেসিডেন্ট ড. উর্জিত প্যাটেলের সঙ্গে দ্বিপাক্ষিক সভা অনুষ্ঠিত হয়।

দ্বিপাক্ষিক সভায় বাংলাদেশ প্রতিনিধিদল বর্তমান বাস্তবতার প্রেক্ষিতে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের ঋণের শর্তসমূহ আরও সহনশীল করার ওপরে গুরুত্বারোপ করে। বাংলাদেশে বর্তমানে এশিয়ান ইনফ্রাস্ট্রাকচার ইনভেস্টমেন্ট ব্যাংকের চলমান বিভিন্ন প্রকল্প এবং ভবিষ্যৎ সম্ভাব্য প্রকল্প নিয়েও দুইপক্ষের মধ্যে আলোচনা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *